আনোয়ার হোছাইন, ঈদগাঁও :

কক্সবাজারের ঈদগাঁও উপজেলায় সাজ্জাদুর রহমান (১৫) নামের এক শিশুকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িতের অভিযোগে একজনকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দিয়েছে জনতা। অভিযুক্তের নাম আব্দুল আলম, সে উপজেলার পোকখালী ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড পূর্ব ইছাখালী গ্রামের আব্দুস সালামের ছেলে।
অপরদিকে নিহত শিশু সাজ্জাদুর রহমান(১৩) পার্শ্ববর্তী ইউনিয়ন ইসলামাবাদ ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড সাতজুলাকাটা এলাকার নুরুল আলমের ছেলে।

নিহতের পরিবার ও থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায় , তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে গত ২৩ সেপ্টেম্বর বিকালে শিশু সাজ্জাদকে তুলে নিয়ে গাছের সাথে বেধে উপর্যপুরী মারধর করে আবদুল আলমের নেতৃত্বে কয়েকজন দূর্বৃত্ত। পরে মারধর করে ছেড়ে দেয় তারা সাজ্জাদকে। নির্যাতনের যন্ত্রণা বৃদ্ধি পাওয়ায় পরিবারের সদস্যরা তাকে ২৫ সেপ্টেম্বর ঈদগাঁওর একটি বেসরকারি ক্লিনিকে নিয়ে যাওয়ার পথে তার অবস্থার অবনতি ঘটে।দ্রুত হাসপাতালে পৌঁছলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ মৃত্যুর সংবাদ এলাকায় জানাজানি হলে নির্যাতনে জড়িত আলমকে স্থানীয়রা উত্তম মধ্যম দিয়ে পুলিশে সংবাদ দেয়। ঈদগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ(পরিদর্শক) মোঃ আবদুল হালিমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে আবদুল আলমকে আটক করে এবং লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরী করে লাশ থানায় নিয়ে যায়।

ধৃত আবদুল আলমকে রামু হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানান,পরিদর্শক মোঃ আবদুল হালিম।তিনি আরো বলেন, লাশের ময়না তদন্ত ও নিহতের পরিবারের পক্ষে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে ।
রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত এ ঘটনায় জড়িত অন্যদের ধরতে পুলিশ অভিযান অব্যাহত রেখেছে।
নির্যাতনে এ কিশোর হত্যার সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে তা মুহুর্তেই সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয় এবং ঘাতক চক্রের ফাঁসির দাবি তুলে।