ডুলাহাজারায় ঝুকিপূর্ণ বাঁশের সাঁকোতে ৪শতাধিক পরিবারের চলাচল

মোস্তফা কামাল, ডুলাহাজারাঃ

চকরিয়া উপজেলার ডুলাহাজারায় ঝুকিপূর্ণ বাঁশের সাকোঁর উপর নির্ভর করছে প্রায় ৪শতাধিক পরিবারের চলাচল।

এতে করে প্রতিনিয়ত দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে গ্রামটির সাধারণ নারী-পুরুষ সহ কোমলমতি শিক্ষার্থীদের। ডুলাহাজারা ইউনিয়নের অবহেলিত ও উন্নয়ন বঞ্চিত ১টি গ্রামের নাম পূর্ব ডুমখালী। এলাকার জন প্রতিনিধিরা প্রতি ৫ বছর পর-পর পরিবর্তন হচ্ছে। কিন্তু কোন উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি গ্রামটিতে।

সরে জমিনে গিয়ে দেখা যায়, মালুমঘাট হাই-ওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি সংলগ্ন কাটাখালী খালের উপর নড়-বড়ে সাঁকো দিয়ে জীবন ঝুকি নিয়ে পারা-পার করছে কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রী সহ শত-শত নারী পুরুষরা। স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, পূর্ব ডুমখালী তাদের গ্রামের ৪ শতাধিক পরিবারের প্রায় ৩ হাজার লোকজন যুগ-যুগ ধরে সাঁকো দিয়ে চলাচল করে জীবন যাপন করে আসছেন। চলাচলের জন্য এলাকার লোকজন প্রতি বছর বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করলেও বর্ষা কালে পাহাড়ী ঢলের পনির ¯্রােতে সাঁকো ভেঙ্গে যায়। তখন এলাকার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। বন্ধ হয়ে যায় শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে যাওয়া-আসা।

স্থানীয় আরবিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার ১০ম শ্রেণির ছাত্রী মারুফা জন্নাত জানান, শুষ্ক মৌসুমে খালটি পার হওয়া গেলেও বর্ষাকালে ঢলের পানির ¯্রােতে সাঁকো ভেঙ্গে গেলে বিদ্যালয়ে যাওয়া বন্ধ হয়ে যায়।

স্কুল ছাত্র ফরহাদ, মোঃ বাপ্পি, নুর কাশেম সহ কয়েকজন কোমলমতি শিক্ষার্থী জানান, আমরা সাঁকো দিয়ে পার হয়ে স্কুলে আসা-যাওয়া করি। আবার সাঁকো থেকে পানিতে পড়েও যায়! পানিতে পড়ে গেলে আমাদের বই-খাতা হারিয়ে যায়। সরকারের কাছে গ্রামটির জন সাধারণের প্রাণের দাবী মহা-সড়ক সংলগ্ন কাটাখালী খালের উপর ওই স্থানে একটি ব্রিজ নির্মাণ করার।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে চকরিয়া এল.জি.ই.ডি প্রকৌশলীর এক কর্মকর্তা বলেন, সেতু নির্মাণের জন্য স্থানীয়রা লিখিত আবেদন করলে বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.